Status

প্রিয়তমার কাছে চিঠি ১১

ভাললাগা এবং ভালবাসা

জীবন,
আমি তোমাকে ভালবাসি বলতে চাই না। জীবন চলার পথে কত কিছুই তো ভাল লাগে। যেমন ধর, চাঁপা ফুল ফোটার শব্দহীন গন্ধ অথবা বসন্তোৎবের সময়ে শালবীথিতে শালফুলের দৃশ্যমান গন্ধ কিংবা মধু পূর্ণিমা রাতের মধু মলতী এবং রজনীগন্ধার মনোহরনকারী গন্ধ কার না ভাল লাগে, সকলেরই তাতে সমান ভাগ, সমান খুশি। সে কোনো বিশেষ কারো নয়। কিন্তু তুমি যে আমার জীবন কাননের মধু মালতী। তোমার সুবাস যে শুধু আমার জন্যই। এ সুবাস অন্য কারো জন্য নয়। আমি জানি কখন তুমি পুষ্পিত হও। তুমি জানো কোন সৌরভে আমি আকুল হই। তুমি তো জানই তোমার ওই দুটি পাপড়ীর নজর কাড়া সৌন্দর্য্যে আমি পাগলপার হয়ে যাই। তুমি জানো, তোমার মনোহরন করা সৌন্দর্য্যে আমিবিমোহিত। সবচেয়ে বড় কথা হলো তুমি বুঝো আমার না বলা কথা, আমিও তোমার অব্যক্ত কথাগুলি বুঝি। তুমি বুঝো আমার না বলা আকাঙ্খা, আমিও জানি তোমার মনের অব্যক্ত আকাঙ্খা। এই যে নিঃশর্ত ভাবে তোমার সব কিছুই আমার ভাললাগে, এটাকে কি বলা যায়, ভালবাসা? লোকে যদি এটাকে ভালবাসা কয়, তাহলে তোমাকে আমি ভালই বসি।

ভাললাগা আর ভালবাসা খুব কাছাকাছি। ভাললাগাতে অনুভুতি থাকে না কিন্তু ভালবাসাতে আবেগ অনুভুতির প্রয়োজন হয়। ভাললাগাতে হারানোর কিছু নেই ভালবাসাতে হারানোর অনেক কিছু থাকে। ভাললাগাতে প্রেম থাকেনা কিন্তু প্রেম ছাড়া ভালবাসা কল্পনাতীত।
জীবন,
তোমাকে ভাল লাগে, আর এ ভালো লাগা আমার হৃদয়ের সবটুকু দখল করে তীব্র এক অনুভূতি জাগায়, যে অনুভূতিকে অগ্রাহ্য করা আমার পক্ষে অসম্ভব, বলতে পারো এর নাম। বলতে পারো এই ভালো লাগা, ভালোবাসার এক অব্যক্ত অনুভূতি।

জীবন,
প্রতিটি সেকেন্ডে, প্রতিটি মূহুর্তে, তুমি আমার মনের সঙ্গোপনে ভাবনা জাগাও। তুমি এই মুহূর্তে সে কী করছো? তুমি কেমন আছ? তুমি কী খেয়েছ? তুমি কি আপনাকে পছন্দ কর? তোমার সঙ্গে কথা না বললে, তোমার কথা না ভাবলে আমার একটি দিন, একটি মূহুর্তও পার হয় না। আমি যতবারই তোমাকে দেখি, ততই আরও দেখতে ইচ্ছা করে।

জীবন,
আমার মনের কথাগুলিকে শুধু তোমার কাছে বলতে ইচ্ছা হয়। আর তুমিও আমার মনের অব্যক্ত কথাগুলিকে ঠিকি বুঝে নাও। সব কথা সবাইকে বলা যায় না। কিন্তু কোনো প্রকার জড়তা ছাড়া তোমার সাথে আমার গোপন বা মনে লুকানো কথাগুলো বলতে পারি। তুমি মূহুর্তেই বলে দিতে পার আমার সঠিক কর্মপন্থা।
জীবন,
আমি প্রতি মুহূর্তে তোমাকে হারিয়ে ফেলার ভয় করি। সর্বক্ষণ আমার মনে এই সংশয় ঘুরপাক খায়। আমি এমন কিছু করতে চাই না যাতে তুমি আমা থেকে হারিয়ে যাও। আর এই ভয়ের কারণেই জীবন তোমাকে আমি অনেক সময় সন্দেহ করি। যখন দেখি তুমি অনলাইনে অথচ আমার ম্যাসেজের উত্তর দিচ্ছ না কিংবা আমায় একটু খানি ম্যাসেজও দিচ্ছ না। হয়তোবা তুমি অন্য কোন জরুরি কাজে সময় দিচ্ছ। কিন্তু পাগলা মনটা এটা বুঝতে চায় না। তোমাকে যেন হারাতে যাচ্ছি এমন ভাবনার আঘাতে মনটা ক্ষতবিক্ষত হয়।

জীবন,
জেনে রেখো, সন্দেহ ভালবাসার চুড়ান্ত পার্ট। তোমাকে সন্দেহের জন্য আমি সন্দেহ করি না। আমি সন্দেহ করি তোমাকে হারানোর ভয়ে। আমি তো চাই না আমার ভালবাসার কেউ অংশীদার হোক। আমি চাই আমার হৃদয় নিংরানো সমস্ত ভালবাসা তোমাতেই উজার করে দেই। আর তাই প্রতিটা মুহুর্তই তোমার ভাবনায় আমি উদাসীন থাকি, আমি চিন্তিত থাকি, আমি সন্দেহে থাকি- আমার জীবন, আমার জান আমার আছে তো? তোমাকে প্রাণোধিক ভালবাসি বলেই এমন হয় আমার জান।

ইতি
তোমার
প্রিয়তম
শাহীদ

Advertisements
Status

প্রিয়তমার কাছে চিঠি -৯

Status

তোর জন্য

তোর জন্য
©…….সহিদুল

আজো আমার পাগল মনটা,
তোরেই শুধু খোঁজে,
তুই হারা মোর মনের জ্বালা,
মনটা কি তোর বুঝে?

কতযে দিন, আর কতযে রাত,
কেটে গেছে আঁখিজলে,
তুই হীনা কাটাই আজো দিন,
ভাল থাকার ছলে।

নির্লজ্জ মোর, মনটাকে দেই,
মাঝে মাঝে ধিক,
ভাল থাকার অভিনয় আজ,
বুঝে গেছি ঠিক।

তোর জন্য আজও কান্দি,
জীবনের এই ভুজে,
তুই হারা মোর মনের জ্বালা,
মনটা কি তোর বুঝে?

Status

কিছু কথা

Status

প্রিয়তমার কাছে চিঠি -৫

জীবন,
তুমি যখন আমায় সময় দিতে পারবনা, জাষ্ট আমাকে একটু বললে কি এমন ক্ষতি যে, আমি ১ দিন বা সারাদিন কিংবা ৭ দিন তোমার সাথে কথা বলতে পারবো না। আমার না হয় একটু কষ্ট হবে, তবু আমি আশায় থাকবো আমার জান …. এত ঘন্টা / দিন পর কথা বলবে। আমি অপেক্ষায় দিন কাটাবো। কিন্তু তুমি এই ডিজিটাল যুগে হঠাৎ করেই এমন ভাবে নিখোঁজ হও যা মেনে নিতে আসলে অনেক কষ্ট হয়। ইদানিং কার হাতে মোবাইল না থাকে? ১০ সেকেন্ডের জন্যেও তো বলা যায়, আমি ওমুক জায়গায় আছি বা যাচ্ছ, তাই কথা বলা যাবে না। কিংবা ছোট্ট একটি ম্যাসেজ দিয়েও তো বলা যায় ব্যস্ত আছি কিংবা ব্যস্ত থাকবো।

তোমার এমন ভাবে নিখোঁজ হওয়া আমার হৃদয়কে কতটা রক্তাক্ত- ক্ষতবিক্ষত করে তোমাকে তা বুঝাতে আমি ব্যর্থ। এটা আমার কপালের দোষ, কারণ আমি তোমাকে কতটা ভালবাসি, তোমার জন্য হৃদয়ে কতটা রক্তক্ষরণ হয় তা আমি বুঝাতে পারিনি।

জীবন তোমাকে একটা কথা বলি, মানুষের পোষ্টমর্টেম কেন করে জানো? মানুষটা কিভাবে মারা গেছে তা জানার জন্য। পোষ্টমর্টেম করে হার্ট এ দেখা হয় কতগুলি আঘাত করা হয়েছে? শরিরের যেখানেই (হাতে, পায়ে, শরীরে) আঘাত করা হোক না কেন, সে আঘাত টা লেগে থাকে হার্টে। আর যদি কারো মনে আঘাত করা হয় সেটা তো সরাসরি আঘাত করে হার্টে।

জীবন,
আমার মরন হলে তুমি দেখে নিও, তোমাকে পোষ্টমর্টেম করে দেখার অনুমতি দিয়ে রাখলাম। তুমি দেখে নিও প্রতিনিয়ত তোমাকে ভেবে কতটা রক্তাক্ত আমার হার্ট? আঘাতে আঘাতে কতটা ক্ষতবিক্ষত আমার হৃদয়? তোমাকে নিয়ে স্বপ্ন দেখেছিলাম। তোমায় নিয়ে স্বপ্ন দেখতে ভাল লাগে। বেঁচে থাকতে খুব ইচ্ছে হয় জান। আমি বেঁচে থাকি বা না থাকি, জীবন তুমি ভাল থেকো অনন্তকাল।

হতভাগা
🙏
সাহীদ

Status

লিমা

লিমা

©…….সহিদুল

লিখতে গেলে কিছু আমি লিখতে নাহি পারি,
তুমি শুধু সামনে এসে দাও যে আমায় আড়ি।
মুখের উপর বুকটি চেপে দেখাও মহিমা,
অঙ্গ লীলায় সঙ্গ দিয়ে ছাড়িয়ে যাও সীমা।

মানতেই হবে তোমার কাছে পরাজিত আমি,
কেন যে মোর এমন হলো জানে অন্তরযামী।
অনেক হলো, এবার ভুলো তোমার অভিমান,
ঘোমটা খোলো, মুখটি তোল ওরে জানর জান।

ছন্দ দুটির অদ্যাক্ষর করিলে যোজন,
মহিয়সী যে নারীর নাম হবে প্রদর্শন।
তারি তরে, কবিতাটি করছি নিবেদন,
ভুল ত্রুটি নিজ গুনে করবে সংশোধন।

Status

মাইশা

Status

ব্যর্থ চেষ্টা

Status

বিচ্ছেদ জ্বালা

বিচ্ছেদ জ্বালা

মোহাম্মদ সহিদুল ইসলাম
অন্তরে আগুন জ্বালাইয়া তুমি গেলা কই?
গাছেতে উঠাইয়া দিয়া টাইনা নিলা মই।
তোমার বিচ্ছেদ জ্বালা কেমনে আমি সই?
তুমি বীনে একলা বল কেমনে আমি রই?

রঙ বেরঙের স্বপ্ন দিয়ে তুমি গেলা চলে,
বল তুমি, কেমন করে অন্যের সাথী হলে?
আমারে কান্দাইয়া বল কি সুখ তুমি পেলে?
বিবা-নিশি আমি এখন ভাসি চোখের জলে।

মনের শান্তি চোখের ঘুম সব নিয়েছ কেড়ে,
জীবন বৃক্ষ ছাই হল মোর প্রেমানলে পুড়ে।
মিষ্টি মধুর কথায় মনটা নিয়েছিলে কেড়ে,
বল তুমি কেমন করে থাকছ আমায় ছেড়ে।

আপন কেহ নাইরে, সবাই কলঙ্কিনী বলে,
এখন শুধু বালিশ ভিজাই আমি আঁখি জলে।
বিরহিণীর নাইরে কেহ এইনা ধরা তলে,
তোমার বিচ্ছেদ জ্বালায় অন্তর যায়রে জ্বলে।

ভালবাসা ভাল নারে সর্ব লোকে কয়,
সর্ব সময় প্রেমানলে অন্তর পুড়ে খায়।
মনে তোরে চায়রে বন্ধু প্রাণে তোরে চায়,
একবার এসে দিও দেখা মনে যদি লয়।

মোহাম্মদ সহিদুল ইসলাম

Status

ভালো থেকো

ভালো থেকো
©…….সহিদুল

কোথায় আছো কেমন আছো, হে অগ্নিবীণা,
সুখেই আছো, ভালো থেকো, আমি নিদ্রাহীনা।

রিমঝিমিয়ে বৃষ্টি যখন আসে,
কষ্টেরা সব মনের মধ্যে ভাসে।
তুইযে আমার হৃদ আকাশের নিলীন মোহনা,
সুখেই আছো, ভালো থেকো, আমি নিদ্রাহীনা।

আমি জানি গো জানি, তুমি স্বর্গসুখের রাণী,
তোর হাসিতে মুক্তা ঝরে, আমার চোখে পানি।
আমার চোখের কষ্টের জল বৃষ্টি নেবে কিনা,
সুখেই আছো, ভালো থেকো, আমি নিদ্রাহীনা।

তুইযে আমার হৃদ গগনে, রাতের তারা,
তুইযে আমার মুক্ত পাখি বাঁধনছাড়া।
আজো তোকে স্বপ্নে দেখি, তুই দেখিস কি না?
সুখেই আছো, ভালো থেকো, আমি নিদ্রাহীনা।

নিহারনে এইতো আমার যাচ্ছে বেলা,
আপন মনে চলছে আমার একলা খেলা,
মন বলেছে তোমায় নাকি আর পাবোনা!
সুখেই আছো, ভালো থেকো, আমি নিদ্রাহীনা।

যেদিন আমি খুঁজে পাব আপন ঠিকানা,
সেদিন তুমি ডাকলেও আমায় পাবে না,
ফিরি যদি নাহি ঘরে, কেঁদনা আর স্মৃতি ধরে।
স্বর্গপানে পাঠিয়ে দিও স্মৃতির পত্রখানা,
সুখেই আছো, ভালো থেকো, আমি নিদ্রাহীনা।

সহিদুল
সিঙ্গাপুর